Breaking News

ইংল্যান্ড এর রাজধানি লন্ডনে ১৪৮ বছরের প্রথা ভেঙে ‘বাহুবলী’র শো

এই প্রথম ইংরেজি ছাড়া অন্য কোনো ভাষার সিনেমা দেখানো হল লন্ডনের ঐতিহ্যবাহী রয়্যাল অ্যালবার্ট হলে। আর তাতেই আবারও বাজিমাত ‘বাহুবলী’র। মহেশমতি সাম্রাজ্যের উত্থান-পতনের বর্ণময় কাহিনি দেখে করতালি দিয়ে ‘বাহুবলী’কে অভিবাদন জানালেন ব্রিটেনের সিনেমাপ্রেমী মানুষ। সিনেমা শেষে উঠে দাঁড়িয়ে নির্মাতা ও কলাকুশলীদের সম্মান জানালেন, কুর্নিশ করলেন দর্শকেরা। হাততালি যেন থামতেই চাইছিল না রয়্যাল অ্যালবার্ট হলে।

মুক্তির চার বছর পরও হইচই প্রভাস-আনুশকার ‘বাহুবলী’ নিয়ে। তবে এবার ভারতে নয়, যুক্তরাজ্য। গত শনিবার লন্ডনের রয়্যাল আলবার্ট হলে দর্শকেরা দেখলেন ‘বাহুবলী-দ্য বিগিনিং’। ভারতের দক্ষিণি সিনেমার পরিচালক এস এস রাজামৌলি পরিচালিত সুপারহিট এ সিনেমা দেখতে ভিড় জমিয়েছিলেন সব বয়সের মানুষ।

‘বাহুবলী: দ্য বিগিনিং’-এর বিশেষ স্ক্রিনিং উপলক্ষে রয়্যাল অ্যালবার্ট হলে উপস্থিত ছিলেন ছবির পরিচালক রাজামৌলি, অভিনেতা প্রভাস-রানা দাগ্গুবতী, অভিনেত্রী আনুশকা শেঠি। বিদেশের মাটিতে ভারতের শিল্পের এমন কদর দেখে আপ্লুত হয়ে পড়েন তাঁরা। ১৪৮ বছরের পুরানো রাজকীয় রয়্যাল অ্যালবার্ট হল সেই ধারাই ভাঙল ‘বাহুবলী’র মাধ্যমে।

ভারতের সিনেমা ইতিহাসে মাইলস্টোন গড়া ‘বাহুবলী’কে নিঃসন্দেহে প্রথম সারিতে রাখতে হবে। ‘বাহুবলী’র হাত ধরে শুধু ভারত নয়, পুরো বিশ্বে পরিচিত হয়ে যান প্রভাস, আনুশকা, তামান্না ও পরিচালক এস এস রাজামৌলি।

ভারতে সর্বাধিক ব্যবসা করা ১০টি সিনেমার তালিকায় আছে বাহুবলী। ২০১৫ সালে মুক্তি পাওয়া ছবিটি প্রায় ৬৫০ কোটি টাকার ব্যবসা করেছিল। বিদেশের মাটিতেও জনপ্রিয়তার নিরিখে শীর্ষে ছিল বাহুবলী। এই ছবির দ্বিতীয় পার্ট ‘বাহুবলী ২’ও সুপার ডুপার হিট।

লন্ডন পৌঁছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছবির অভিনেতা-অভিনেত্রীদের সঙ্গে ছবি পোস্ট করে আগেই বার্তা দিয়েছিলেন পরিচালক। রাজামৌলি লিখেছিলেন, ‘লন্ডনে বাহুবলীর রয়্যাল রিইউনিয়ন। রয়্যাল অ্যালবার্ট হলে আজকের সন্ধ্যায় বাহুবলীর দেখার অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করতে মুখিয়ে রয়েছি।’

রয়্যাল অ্যালবার্ট হলে ছবির স্ক্রিনিংয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ব্যাকগ্রাউন্ডে লাইভ অর্কেস্ট্রা পারফর্ম করেন ছবির সংগীত পরিচালক এম এম কিরাবানি এবং তাঁর দল।

রয়েল আলবার্ট হল লন্ডনের বিখ্যাত একটি দাতব্য কনসার্ট হল। ১৮৭১ সালে ইংল্যান্ডের রানি ভিক্টোরিয়া এ কনসার্ট হলটি উদ্বোধন করেন। ইংল্যান্ডের সংস্কৃতির অনেক কিছুকে প্রতিনিধিত্ব করে এই হল। প্রতিবছর চার শতাধিক অনুষ্ঠান হয় এ হলে। এটি একটি বেসরকারি কনসার্ট হল। হলটিতে পাঁচ হাজারে বেশি আসন রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.